হালিমে মাংস পেয়ে খুশি হয়ে হালিম বিক্রেতাকে জড়িয়ে ধরে চুমু দিয়ে দিলেন এক ব্যক্তি

হালিমে মাংস পাওয়ার খুশিতে জনসম্মুখে হালিম বিক্রেতাকে চুমু দিয়ে দিয়েন এক মহাখালীবাসী। জানা যায় ইফতারের জন্য হালিম কিনতে তেহারীর দোকানের সামনে কিছুক্ষন দাঁড়িয়ে টের পান যে উনাকে রোজায় ধরসে এরপর পাশেই হালিমের দোকানে যান। পরে হালিম কিনে বাসায় এসে দেখেন বাটিতে মাংস। এই দৃশ্য দেখে আনন্দে আত্নহারা হয়ে খুশিতে ঠ্যালায় দৌড়ে তিনি আবারো উক্ত দোকানে গিয়ে দোকানদারকে জনসমুক্ষে চুমু খেয়ে বসেন। এমন খবর এলাকায় ছড়িয়ে গেলে হালিম বিক্রেতা লজ্জায় পরে যান এবং কাপড় দিয়ে মুখ ঢেকে হালিম বিক্রি করতে থাকেন। এদিকে এই খবরে বেশি মাংসের আশায় আমাদের প্রতিবেদকও সেই হালিমের দোকানে হালিম কিনতে গেলে হালিম বিক্রেতা মুখ দেখাতে রাজি হননি, তিনি মুখ না দেখিয়েই বলেন- “এইডা কোন কথা বলেন? হালিমে ভুলে মাংস বেশি পইড়া গেসে, আর ঐ লোক আইসা কি কামডা করলো। আমি এখন আমার নিজের বউরে মুখ দেখাইতে পারতেছি না, ছি ছি”

তবে এ ব্যাপারে চুমু দেয়া ঐ ভাইটি বলেন- “ভাই হালিমে এত মাংস দেখে আবেগে আমার কি হইসিলো না জানি, চোউক্ষে আয়া পরসিলো পানি। তাই দৌড়ে গিয়ে হালিমওয়ালা ভাইকে চুমু খেয়ে নিসি, পরে অবশ্য বুঝতে পারসি ব্যাপারটা ঠিক হয় নাই । অনেক চ্যানেল ব্যাপারটা লাইভ টেলিকাস্ট করে ফেলসে আর সবাই আমারে অন্য চোখে দেখতেসে।”

এদিকে বেশি মাংসওয়ালা হালিম খেতে দলে দেশ বিদেশের লোকজন ঐ হালিমের দোকানে ভিড় করছে। হালিম কেনার ভীড়ের মধ্যে জাস্টিন বিবারকে পাওয়া আমাদের প্রতিবেদক তাকে বেইবি বেইবি বলে জাপটে ধরে বলেন- “জাস্টিন ভাই আপনি এখানে?” তখন জাস্টিন বিবার বলেন- “মামার ভেশি মাংস দিয়ে হালিম খেতে এসেছি, শুনেছি কুব ট্যাশ”।

এরপর ইফতারের সময় হলে আমাদের প্রতিবেদকই হালিমের লাইনে দাঁড়িয়ে যান।

কমেন্টসমুহ
সিক্রেট ডাইরি সিক্রেট ডাইরি

Top